কসোভো ওয়ার্ক পারমিট ভিসা ও বেতন কত ২০২৪

কসোভো একটি উন্নত রাষ্ট্র এবং পরিচ্ছন্ন একটি রাষ্ট্র যেখানে প্রতিবছর হাজার হাজার শ্রমিক বিভিন্ন কাজের জন্য গিয়ে থাকে। সাধারণত অন্যান্য দেশের তুলনায় এখন বেশিরভাগ শ্রমিক বাংলাদেশ থেকে সেখানে কাজের জন্য যায়। মূলত কসোভো কাজের জন্য যেতে চাইলে অবশ্যই কসোভো ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় যেতে হবে। কেননা সেখানে কাজের জন্য শুধু কসোভো ওয়ার্ক পারমিট ভিসা চালু রয়েছে। আপনারা এই দেশের ভিসার জন্য অনেকগুলো উপায়ে আবেদন করতে পারবেন।

প্রত্যেক বছরে যখন কসোভো থেকে সরকারি সার্কুলার দেয় তখন আপনারা অল্প খরচে কসোভো ভিসা তৈরি করে নিতে পারবেন। এছাড়াও এজেন্সির মাধ্যমেও কসোভোর ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন কিন্তু ভিসা খরচ সহ সবমিলিয়ে অনেক বেশি টাকা খরচ পড়বে। তবে ভিসা আবেদন করার আগে আপনাদের কসোভো ওয়ার্ক পারমিট ভিসা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে হবে। তাই আজকের পোস্টে কসোভো ওয়ার্ক পারমিট ভিসা সম্পর্কে সকল তথ্য এবং ভিসার দাম তুলে ধরবো।

কসোভো ওয়ার্ক পারমিট ভিসা

কসোভো একটি উন্নত রাষ্ট্র যেখানে শ্রমিক হিসেবে যাওয়ার জন্য শুধু কসোভো ওয়ার্ক পারমিট ভিসা চালু রয়েছে। এছাড়াও কসোভো যাওয়ার জন্য আরো কিছু ভিসা পেয়ে যাবেন তবে সবচাইতে জনপ্রিয় হচ্ছে কসোভোর ওয়ার্ক পারমিট ভিসা। সাধারণত আপনারা সব সময় এই দেশের ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন না। শুধুমাত্র সরকারি সার্কুলার এবং বেসরকারিভাবে এজেন্সির মাধ্যমে এই দেশে যাওয়ার জন্য সুযোগ পেয়ে যাবেন।

এছাড়াও কসোভো ওয়ার্ক পারমিট ভিসার মধ্যেও কয়েক ধরনের কাজ রয়েছে। আর সেগুলো একেক কাজের বেতন একেক রকম ভাবে দিয়ে থাকে। সেক্ষেত্রে যদি আপনাদের কাজের মান অনেক ভালো হয় তাহলে প্রতি মাসে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন। তবে এই দেশে যাওয়ার জন্য আপনাদের অবশ্যই কাজের ওপর দক্ষতা থাকতে হবে। তাই এখন আপনাদের জানাবো কসোভো ওয়ার্ক পারমিট ভিসার মধ্যে কি কি কাজ আছে।

  • কনস্ট্রাকশন
  • ইলেকট্রিশিয়ান
  • ড্রাইভিং
  • হোটেল বা রেস্টুরেন্ট
  • ক্লিনার
  • ফ্যাক্টরি ইত্যাদি।

কসোভো ওয়ার্ক পারমিট ভিসা দাম কত

কসোভো একটি উন্নত রাষ্ট্র যেখানে কাজের জন্য যেতে চাইলে অবশ্যই আপনাকে অনেক বেশি টাকা গুনতে হবে। যদি ওয়ার্ক পারমিট ভিসার মধ্যে ভালো কোন কাজে যেতে চান যেমন কন্সট্রাকশন অথবা ইলেকট্রিশিয়ান কাজে যেতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাদের অনেক বেশি টাকা খরচ পড়বে। তবে খরচ বাঁচানোর জন্য আপনারা সরকারি সার্কুলারের অপেক্ষা করতে পারেন।

কেননা সরকারি সার্কুলারের মাধ্যমে খুব অল্প খরচে কসোভো পৌঁছে যেতে পারবেন। যদি কসোভোতে আপনাদের পরিচিত কোন লোক থাকে তাহলে তাদের সাহায্য নিয়েও অল্প খরচে যেতে পারবেন। বর্তমান সময়ে কসোভো ওয়ার্ক পারমিট ভিসার দাম হচ্ছে ৮ লক্ষ টাকা থেকে ১২ লক্ষ টাকা। কিন্তু যদি সরকারি ভাবে কসোভো ভিসা পেতে পারেন তাহলে এর চাইতেও কম খরচে কসোভো যেতে পারবেন।

আরো পড়ুনঃ পর্তুগাল ওয়ার্ক পারমিট ভিসা ও ভিসার দাম কত

কসোভো বেতন কত

মূলত কসোভো একটি উন্নত কান্ট্রি যেখানে আপনাদের কাজের ক্যাটাগরি এবং কাজের অভিজ্ঞতার উপর নির্ভর করে বেতন দিবে। যদি আপনাদের কাজের ধরন অনেক ভালো হয় এবং ওই কাজের ওপর ভালো দক্ষতা থাকে তাহলে বেশি টাকা ইনকাম করতে পারবেন। আর যদি নতুন অবস্থায় কাজের অভিজ্ঞতা না থাকে তাহলে কম টাকা বেতন পাবেন। সাধারণত কসোভো কাজের বেতন হচ্ছে ২৬৫ ইউরো থেকে ৩৫০ ইউরো যা বাংলাদেশী টাকায় হিসেব করলে মাসে বেতন ৩০ হাজার থেকে ৪০ হাজার টাকার উপরে।

সেক্ষেত্রে যদি আপনাদের কাজের ধরন অনেক ভালো হয় তাহলে প্রতি মাসে ৫০ হাজার থেকে ৭০ হাজার টাকা অনায়াসে ইনকাম করতে পারবেন। এছাড়াও যদি নতুন অবস্থায় অভিজ্ঞতা নিয়ে কসোভো কাজের জন্য বা কসোভো ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় কাজের যান তাহলে মাসে বাংলাদেশী টাকায় ৬০ হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবেন। মূলত আপনাদের কাজের বেতন সম্পূর্ণ আপনাদের কাজের ক্যাটাগরির এবং কাজের অভিজ্ঞতার ওপর নির্ভর করে।

কসোভো ওয়ার্ক পারমিট চেক

এখন এমন অনেকে কসোভো জীবিকা নির্বাহ করার জন্য কসোভো ওয়ার্ক পারমিট ভিসার জন্য আবেদন করে যাচ্ছে। কেউ হয়তো সরকারি সার্কুলার অনুযায়ী অল্প টাকায় ওয়ার্ক পারমিট ভিসার জন্য আবেদন করতেছে আবার অনেকে এজেন্সির সাহায্য নিয়ে পারমিট ভিসার জন্য আবেদন করে যাচ্ছে। কিন্তু বর্তমান সময়ে অনেক প্রতারক আছে যারা সাধারণ মানুষদের নকল ভিসা ধরিয়ে দেয়। এজন্য অনেকে ভিসাটি হাতে পাওয়ার পর ওই ভিসাটি আসল নাকি নকল তা যাচাই করতে চায়।

খন আপনারা ঘরে বসে অনলাইনের মাধ্যমে খুব সহজেই যেকোনো ভিসা চেক করে নিতে পারবেন। সেক্ষেত্রে প্রথমে আপনাদের গুগল ক্রোমে প্রবেশ করতে হবে এরপর কসোভো ওয়ার্ক পারমিট চেক লিখে সার্চ করলে একটি ওয়েবসাইট পেয়ে যাবেন। ওই ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে যাবতীয় সকল তথ্য প্রদান করে খুব সহজেই ভিসাটি আসল নাকি নকল তা যাচাই করে নিতে পারবেন।

শেষ কথাঃ

বর্তমানে বাংলাদেশের অনেক শ্রমিক আছে যারা কসোভো ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় বিভিন্ন কাজের জন্য যেতে চায়। কিন্তু দেখা যাচ্ছে তাদের কসোভো ওয়ার্ক পারমিট ভিসা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য এবং ভিসার দাম জানা থাকে না। তাই আজকের পোস্টে সবার সুবিধার্থে কসোভো ওয়ার্ক পারমিট ভিসা সম্পর্কে সকল তথ্য এবং কাজের বেতন তুলে ধরেছি। আশা করি আপনারা সবাই এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন। যদি এই আর্টিকেলটি আপনাদের ভালো লাগে তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন।

Leave a Comment