দুবাই ক্লিনার ভিসা চাকরি নিয়োগ ২০২৪ বিজ্ঞপ্তি

অন্যান্য দেশের তুলনায় দুবাই দেশটি ছোট হলেও শক্তিশালী এবং অনেক উন্নত আর আরব আমিরাতের প্রভাবশালী শহর হচ্ছে দুবাই। দুবাই থেকে প্রত্যেক বছরেই বিভিন্ন কাজের জন্য শ্রমিক নিয়োগ দিয়ে থাকে। এছাড়াও বোয়েসেল থেকে প্রত্যেক বছরই নির্দিষ্ট একটা সময়ে সরকারিভাবে শ্রমিক নিয়োগ দিয়ে থাকে। যদি আপনাদের কাজের অভিজ্ঞতা থাকে তাহলে অল্প খরচে বোয়েসেল থেকে দুবাইয়ের ক্লিনার ভিসা এবং আরো অন্যান্য ভিসা করে নিতে পারবেন।

বেসরকারিভাবে এজেন্সির মাধ্যমে দুবাই ক্লিনার ভিসা করতে পারেন কিন্তু বেসরকারিভাবে ভিসা করতে অনেক টাকা খরচ হয়। এজন্য সরকারি নিয়োগ দেখে সার্কুলার অনুযায়ী ভিসার জন্য আবেদন করতে পারেন। সরকারিভাবে দুবাই ক্লিনার ভিসায় যেতে ৪ লক্ষ থেকে ৫ লক্ষ টাকা খরচ পড়বে এবং বেসরকারিভাবে যেতে চাইলে ৬ লক্ষ টাকার উপরে খরচ পড়বে। তাই আজকের পোস্টে এবং দুবাই ক্লিনার ভিসার চাকরি নিয়োগ ২০২৪ বিজ্ঞপ্তি সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরবো।

দুবাই ক্লিনার ভিসা

দুবাইয়ের অন্যান্য ভিসার তুলনায় দুবাইয়ের ক্লিনার ভিসার কাজ অনেক সহজ। দুবাই বিভিন্ন ধরনের ক্লিনার কোম্পানি রয়েছে আর সেই কোম্পানি থেকে প্রত্যেক বছরেই ক্লিনার কাজের জন্য শ্রমিক নিয়োগ দিয়ে থাকে। এছাড়াও শ্রমিক ভিসায় ক্লিনারের বিভিন্ন ধরনের কাজ করতে পারবেন। তবে দুবাই ক্লিনার ভিসায় কাজের জন্য যেতে চাইলে অবশ্যই দুবাইয়ের একটি ক্লিনার ভিসা থাকতে হবে।

বেসরকারিভাবে কোন এজেন্সির সাহায্য নিয়ে দুবাই ক্লিনার ভিসার জন্য আবেদন করে ভিসা করে নিতে পারবেন। দুবাইয়ে ক্লিনার ভিসায় কাজের জন্য রেস্টুরেন্টের কাজ, কোম্পানির কাজ, হোটেলের কাজ ইত্যাদি এসব কাজ করতে পারবেন। এছাড়াও আপনারা নিজেরাই বাসা বাড়ি ক্লিনার এবং অফিস ক্লিনারের কাজ করতে পারবেন। তবে ক্লিনার কাজের বিভিন্ন যন্ত্রপাতির ব্যবহার করা জানা থাকতে হবে।

দুবাই ক্লিনার ভিসা দাম কত

বর্তমানে আপনারা দুবাই দুই রকম ভাবে ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন যেমন সরকারিভাবে এবং বেসরকারিভাবে। যদিও সরকারিভাবে অল্প টাকায় ভিসা করে নিতে পারবেন কিন্তু দুবাই বিভিন্ন ক্লিনার কোম্পানির শ্রমিক নিয়োগের অপেক্ষা করতে হবে। এছাড়াও আপনারা বেসরকারিভাবে এজেন্সির সাহায্য নিয়ে দুবাইয়ের ক্লিনার ভিসার আবেদন করতে পারবেন।

যদি সরকারি ভাবে দুবাইয়ের ক্লিনার ভিসার আবেদন করে ভিসা পেতে পারেন তাহলে অন্যান্য সব খরচ দিয়ে সর্ব মোট দুবাই কিনার ভিসায় যেতে ৪ লক্ষ থেকে ৫ লক্ষ টাকা খরচ পড়বে। এছাড়াও যদি বেসরকারিভাবে এজেন্সির মাধ্যমে দুবাই ক্লিনার ভিসায় যেতে চান তাহলে যাবতীয় সব ধরনের খরচ দিয়ে দুবাই ক্লিনার ভিসায় যেতে ৬ লক্ষ থেকে ৭ লক্ষ টাকার উপরে খরচ পড়বে।

দুবাই ক্লিনারের বেতন কত

সাধারণত দুবাই কাজের উপর ভিত্তি করে বেতন নির্ধারণ করা থাকে। এছাড়াও যদি আপনার ক্লিনার কাজের ওপর ভালো অভিজ্ঞতা এবং উন্নত মানের যন্ত্রপাতির ব্যবহার জানা থাকে তাহলে প্রতি মাসে ভালো একটি পরিমাণে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। দুবাই ক্লিনার ভিসায় কয়েকটি ক্যাটাগরির কাজ রয়েছে আর একেক ক্যাটাগরির কাজের বেতন একেক রকম ভাবে নির্ধারণ করা থাকে।

সাধারণত যারা নতুন অবস্থায় দুবাই ক্লিনার ভিসায় কাজের জন্য যাবে তারা প্রতি মাসে ৩৫ হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত ইনকাম করতে পারবে। এছাড়াও যদি ক্লিনার কাজের উপর ভালো অভিজ্ঞতা এবং বিভিন্ন যন্ত্রপাতির ব্যবহার জানা থাকে তাহলে প্রতি মাসে ৪০ হাজার থেকে ৭০ হাজার টাকা পর্যন্ত ইনকাম করতে পারবেন।

আরো পড়ুনঃ দুবাই কোম্পানির ভিসার বেতন কত

দুবাই ক্লিনার ভিসা নিয়োগ ২০২৪

প্রত্যেক বছরেই নির্দিষ্ট একটা সময়ে দুবাই ক্লিনার ভিসায় কাজের জন্য শ্রমিক নিয়োগ দিয়ে থাকে। আর সরকারিভাবে এই ভিসায় শ্রমিক নিয়োগ খুব কম দিয়ে থাকে। সরকারিভাবে সবাই ভিসা পায় না কেবলমাত্র কয়েকশো শ্রমিক চাকরির জন্য সুযোগ পেয়ে থাকে। তবে সরকারিভাবে ভিসার আবেদন করতে চাইলে অবশ্যই কাজের উপর অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

আপনারা বাংলাদেশ ওভারসিজ এমপ্লয়মেন্ট এন্ড সার্ভিস লিমিটেড অর্থাৎ বোয়েসেল অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকে প্রকাশিত নিয়োগের বিস্তারিত তথ্য গুলো জেনে নিতে পারেন। আপনারা https://boesl.gov.bd/ এই অফিশিয়াল ওয়েবসাইট থেকে নোটিশ থেকে শুরু করে ভিসা সংক্রান্ত সব ধরনের তথ্য ঘরে বসে খুব সহজেই জেনে নিতে পারবেন।

দুবাই ক্লিনার ভিসায় কোথায় চাকরি করা যায়

বর্তমানে বাংলাদেশ থেকে যারা দুবাই ক্লিনার ভিসা বিভিন্ন কাজের জন্য যেতে চাচ্ছে তাদের মধ্যে অনেকেই জানার আগ্রহ করে দুবাই ক্লিনার ভিসায় কোথায় চাকরি করা যায়। সাধারণত দুবাই ক্লিনার ভিসায় আরব দেশ এবং আরো অন্যান্য শহরে ক্লিনারের কাজ করতে পারবেন। আপনারা ক্লিনার ভিসায় রেস্টুরেন্ট ক্লিনারের কাজ, হোটেল ক্লিনারের কাজ, কোম্পানি ক্লিনারের কাজ, অফিস ক্লিনারের কাজ, বিভিন্ন সার্ভিস সেন্টারের ক্লিনারের কাজ ইত্যাদি এসব কাজ করতে পারবেন।

এছাড়াও বেসরকারিভাবে এজেন্সির মাধ্যমে এই সব কাজের জন্য আপনারা ভিসা করে নিতে পারবেন। তবে বেসরকারিভাবে যদি এইসব ক্লিনার কাজের ভিসায় যেতে চান তাহলে ৬ লক্ষ থেকে ৭ লক্ষ টাকা পর্যন্ত খরচ পড়বে। আপনারা ক্লিনার ভিসায় আরো কাজ পেয়ে যাবেন যেমন বাসা বাড়ির কাজ এবং নিজস্ব ক্লিনার কাজ। যদি এইসব ক্লিনার ভিসায় কাজের জন্য যেতে পারেন তাহলে প্রতি মাসে ৪০ হাজার থেকে ৬০ হাজার টাকা পর্যন্ত ইনকাম করতে পারবেন।

শেষ কথাঃ

বাংলাদেশের হাজারো শ্রমিক রয়েছে যারা দুবাই ক্লিনার ভিসায় বিভিন্ন কাজের জন্য যাচ্ছে কিন্তু তাদের দুবাইয়ের ক্লিনার ভিসার খরচ এবং ক্লিনার ভিসার সম্পর্কে তথ্য জানা থাকে না। তাই আজকের পোস্টে সবার সুবিধার্থে দুবাইয়ের ক্লিনার ভিসার চাকরি নিয়োগ সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য, ক্লিনার ভিসার দাম, ক্লিনার ভিসার বেতন এবং আরো কিছু তথ্য জানিয়েছি। এছাড়াও যদি এইরকম আরো নতুন নতুন তথ্য পেতে চান তাহলে আমাদের ওয়েবসাইটের সাথে থাকুন।

Leave a Comment